ভাগ

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ভাগ্য আজ বৃহস্পতিবার নির্ধারণ করবেন দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। পানামা পেপারসের কেলেঙ্কারিতে নওয়াজ শরিফ ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের দুর্নীতির অভিযোগের ওপর রুল জারি হলে প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতা থেকে সরে যেতে হতে পারে।

আদালতের এ উদ্যোগে পাকিস্তানি জনগণের ব্যাপক সমর্থন রয়েছে। জঙ্গিদের দৌরাত্ম্যে ভরা দেশটিতে যেখানে নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটছে, সেখানে আদালতের এমন সিদ্ধান্তে নওয়াজ শরিফ ও ক্ষমতাসীন দল সংকটের মুখে পড়বে। আগামী বছরই দেশটিতে নির্বাচন হওয়ার কথা। খবর এএফপির।

গত বছর বিতর্কিত পানামা পেপারস ফাঁস হয়। পানামাভিত্তিক আইনি সহায়তা প্রতিষ্ঠান মোসাক ফনসেকার এক কোটিরও বেশি নথি ফাঁস হয়। এসব নথিতে চীনা প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং থেকে শুরু করে বলিউড সুপারস্টার অমিতাভ বচ্চন, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফসহ বিশ্বের বহু প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের নাম উঠে আসে। ধনী আর ক্ষমতাধর ব্যক্তিরা কীভাবে, কোন কৌশলে কর ফাঁকি দিয়ে গোপন সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলেছেন, তা বেরিয়ে আসে এসব তথ্যে।

ফাঁস হওয়া নথিতে নওয়াজের চার ছেলেমেয়ের মধ্যে তিনজন মরিয়ম, হাসান ও হোসেনের নাম এসেছে। নওয়াজের সন্তানেরা মোসাক ফনসেকার মাধ্যমে পরিচালিত বিভিন্ন অফশোর কোম্পানির মালিকানার অংশীদার। সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন বিরোধী দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই), জামায়াতে ইসলামিসহ কয়েকটি দলের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পানামা পেপারস কেলেঙ্কারি নিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এবং তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়।

নওয়াজ শরিফের ক্ষমতাসীন দল পাকিস্তান মুসলিম লীগের (পিএমএল-এন) দাবি, পাকিস্তান ও উপসাগরীয় অঞ্চলে বৈধপথে পারিবারিক ব্যবসা থেকেই এই সম্পদ অর্জিত হয়েছে।

তবে পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার ও বিরোধী রাজনৈতিক দল পিটিআই নেতা ইমরান খানের আইনজীবীরা বলছেন, নওয়াজ শরিফকেই প্রমাণ করতে হবে যে তাঁর আত্মীয়স্বজন অর্থ পাচারের সঙ্গে জড়িত নন।

বছরের বেশির ভাগ সময় নওয়াজ শরিফ ও তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে করা মামলা ছিল সংবাদমাধ্যমে আলোচিত। অনেক পর্যবেক্ষকেরা মত দেন, আদালত সরাসরি নওয়াজকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চাইবেন না। বারবার বলা হয়, মামলাটি ফৌজদারি হিসেবে পরিচালনা করা হচ্ছে না।

পিএমএল-এনের প্রাদেশিক আইনপ্রণেতা হিনা ভাট এএফপিকে বলেন, ‘আমরা আশা করি, দেশের আইন অনুসারে আদালতের সিদ্ধান্ত আসবে। বিরোধীদের প্রত্যাশা এতে প্রভাব ফেলবে না।’

সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এস এম জাফর এএফপিকে বলেন, পাকিস্তানের ইতিহাসকে বদলে দেবে—এমন রায় প্রত্যাশা করছে জাতি। তিনি বলেন, এই মামলা পাকিস্তানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, এ বছরের জানুয়ারি মাসে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের প্রকাশিত সূচকে ১৭৬টি দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের মধ্যে পাকিস্তানের অবস্থান ১১৬।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক রসুল বক্স রইস বলেন, এটি ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত হতে যাচ্ছে। এটি পাকিস্তানকে নির্বাচনী আমেজের দিকে নিয়ে যাবে। তিনি বলেন, নতুন বিচারবিভাগীয় কমিশন হতে পারে, যা দুর্নীতির বিষয় তুলে ধরার ক্ষেত্রে ইমরান খানের নৈতিক বিজয় দাবির বিষয়টিকে অনুমোদন দেবে।

যদি নওয়াজ শরিফকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়, তাহলে পিএমএল-এন দলের ভেতর থেকেই নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন করতে পারে। তবে নতুন নির্বাচনের জন্য রাজনৈতিক চাপ থাকবে।